সার্ধশতের অপেক্ষায় ঐতিহ্যবাহী রাজশাহী কলেজ

রাজশাহী কলেজ বার্তা | | March 31, 2016 at 2:22 am

রাজশাহী কলেজ

রাজশাহী কলেজ আগামীকাল ০১ এপ্রিল ২০১৬ তার ১৪৩ বছর পূর্ণ করতে চলেছে। ১৪৩ বছর আগে পহেলা এপ্রিল ১৮৭৩ মাত্র ছয়জন ছাত্র নিয়ে রাজশাহী শহরে যে শিক্ষা বৃক্ষের বীজ বপন করা হয়েছিল তা আজ এক ঐতিহ্যে পরিণত হয়েছে।

প্রমত্তা পদ্মা নদীর তীরে ৩৫ একর জমির উপর দাঁড়িয়ে জ্ঞানের আলো জ্বালিয়ে যাচ্ছে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। শিক্ষা-দীক্ষায়, শিল্প-সাহিত্যে, মননে-সৃজনে, বিজ্ঞান-প্রযুক্তিতে অসাধারণ সাফল্য দেখিয়ে অবাক করে দিয়েছে সবাইকে।

বর্তমানে কলেজের এইচএসসিসহ ২৪টি বিভাগে স্নাতক সম্মান, স্নাতকোত্তর ও ডিগ্রি পাস কোর্সে পড়ানো হয়।  অধ্যয়ন করছে প্রায় ২৭ হাজার শিক্ষার্থী । কর্মরত রয়েছেন ২৪৮জন শিক্ষক ।

শুরুর কথা

রাজশাহী শহরে একটি কলেজ প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্যে নওগাঁর  দুবলহাটির রাজা হরনাথ রায় চৌধুরী ১৮৭২ সালে  তাঁর জমিদারির একটি অংশ রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুলকে দান করেন। তাঁরই অর্থানুকূলে ১৮৭৩ সালের পহেলা এপ্রিল একজন মুসলিম ছাত্র সহ মোট ছয়জন ছাত্র নিয়ে কলেজিয়েট স্কুলের সঙ্গে বর্তমান রাজশাহী কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণির সমমানের ফার্স্ট আর্টস কোর্স চালু হয় । এরই ধারাবহিকতায় ১৮৭৮ সালে বি.এ এবং মাস্টার্স কোর্স খোলার অনুমতি প্রদান করা হয়।

কৃতি শিক্ষার্থীরা

পশ্চিম বঙ্গের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী বিখ্যাত রাজনীতিবিদ জ্যোতি বসু, উপমহাদেশের খ্যাতিমান চলচ্চিত্র পরিচালক ঋত্বিক ঘটক, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য স্যার যদুনাথ সরকার, বৈজ্ঞানিক প্রথায় ইতিহাস চর্চার পথিকৃত অন্যতম সাহিত্যিক অক্ষয় কুমার মৈত্র, সাবেক প্রধান বিচারপতি হাবিবুর রহমান, জননেতা ও শিক্ষানুরাগী মাদার বখশ, বাংলাদেশের চার জাতীয় নেতার একজন এ এইচ এম কামারুজ্জামানের মতো বরেণ্য ব্যক্তিত্ব এ কলেজের ছাত্র ছিলেন।

প্রযুক্তির ছোঁয়া

একবিংশ শতব্দীর প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে রাজশাহী কলেজ ডিজিটাল করে নিয়েছে নিজেকে। কলেজের নিরাপত্তা বিধান করতে গুরুত্বপূর্ণ স্থানে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। আধুনিক বিশ্বের সঙ্গে সংযুক্ত থাকতে সকল শিক্ষার্থীদের জন্য  বিনামূল্যে ওয়াই ফাই সুবিধা দেওয়া হয়েছে । ৮৮টি শ্রেণিকক্ষকে মাল্টিমিডিয়ায় রূপান্তর  করা হয়েছে। তার জন্য শিক্ষকদের দেওয়া হয়েছে ৪৫০টি ল্যাপটপ। প্রত্যেক বিভাগে রয়েছে ব্রডব্র্যান্ডের ইন্টারনেট সংযোগ। কলেজের যাবতীয় তথ্য প্রদর্শনের জন্য প্রশাসন ভবনে এলইডি সাইনবোর্ড লাগানো হয়েছে।

অর্জনের ঝুলি

কলেজকে আধুনিকীকরণ ও শিক্ষাক্ষেত্রে আধুনিক এবং ডিজিটাল ব্যবস্থা প্রবর্তনের জন্য অধ্যক্ষ প্রফেসর হবিবুর রহমান বিভাগীয় ‘ইনোভেশন এ্যাওয়ার্ড-২০১৬’ লাভ করেছেন।  বিভাগীয় ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলায় রাজশাহী বিভাগে শ্রেষ্ঠ কলেজ হিাসেবে বিবেচিত হয়। এছাড়া উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় ২০১৩ ও ২০১৪ সালে রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডে প্রথম স্থান অর্জন করে এবং ২০১৪ সালে সরকারি কলেজের মধ্যে শ্রেষ্ঠ স্থান লাভ করে। কলেজ পর্যায়ে বৃহত্তম মানব পতাকা প্রদর্শন করেছে এই কলেজ।

সিলেবাসের বাইরে

শুধু একাডেমিক পড়াশুনা নয়- কলেজকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে বিভিন্ন জায়গায় বসানো হয়েছে ডাস্টবিন । ঘোষণা করা হয়েছে ধূমপানমুক্ত ক্যাম্পাস। গাছে লাগানো হয়েছে নামফলক। সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতে তিন জায়গায় করা হয়েছে ফুলের বাগান। আড়ম্বরের সঙ্গে পালন করা হয় বিভিন্ন দিবস-উৎসব। ডজনখানেক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সহশিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।

সকলের আশির্বাদ পুষ্ট হয়ে রাজশাহী কলেজের শিক্ষার ফল্গ–ধারা বয়ে চলুক নিরবধি – হয়ে উঠুক মহামানব গড়ে তোলার আদর্শ বিদ্যাপীঠ। কাজ করে যাক সকলের হিতার্থে। আসন্ন সার্ধশত বার্ষিকী পালনের প্রাক্কালে এই কামনা সকলের।

৩১ মার্চ ২০১৬ / রাজশাহী কলেজ বার্তা / সবুজ সরকার

2 comments on “সার্ধশতের অপেক্ষায় ঐতিহ্যবাহী রাজশাহী কলেজ

  1. I passed from Rajshahi college in 1993. I feel proud that I was a student of this college. I want to join 150yrs celebration. Let’s arrange a nice program on this occasion.

Leave a Reply

Your email address will not be published.